Home সর্বশেষ খবর সলঙ্গায় দলিল লেখক হয়ে দলিল লেখকের কাছে চাদা দাবি

সলঙ্গায় দলিল লেখক হয়ে দলিল লেখকের কাছে চাদা দাবি

3
0


সিরাজগঞ্জ রায়গঞ্জ উপজেলার সলংগা দলিল লেখক সমিতিতে দলিল প্রতি পাঁচ শত টাকা চাদা দাবি করায় দলিল লেখক সমিতির সদস্যদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

চাদা দাবির অভিযোগ উঠেছে সমিতির দলিল লেখক আনিসুর রহমান এর বিরুদ্ধে। ইতি মধ্যে চাদার টাকা না পেয়ে, গত ১৮ মার্চ ২০২৪ তারিখে সমিতির সভাপতি আব্দুল করিম ভোলা, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান  মুকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম রানার নাম উল্লেখ করে একটি মিথ্যা লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর বলে জানান দলিল লেখক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম রানা।

এদিকে সমিতির সভাপতি আব্দুল করিম ভোলা জানান, দলিল লেখক আনিসুর রহমান আনিস প্রায় আমাকে বলে আসছে সমিতিতে প্রতিদিন যত দলিল হবে প্রত্যেক দলিল হতে তাকে পাঁচ শত টাকা চাদা দিতে হবে, সমিতি এই অবৈধ প্রস্তাব না মানলে দলিল লেখক আনিসুর রহমান সরকারী বিভিন্ন দপ্তর ও সাংবাদিকদের কাছে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ঐতিহ্যবাহি সলঙ্গা দলিল লেখক সমিতির মান ক্ষুন্ন করছে বলে তিনি জানান। দলিল গ্রহীতাদের কাছে সুকৌশলে অতিরিক্ত অর্থ আদায় বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এই ধরনের অভিযোগ সম্পুর্ন মিথ্যা, তাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেওয়া হয় না,দলিল গ্রহীতারা এই ধরনের অভিযোগও দেয়নি।রমজানের ঈদের পর সমিতি সমস্থ সদস্যদের সিদ্ধান্তে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম রানা বলেন, সলঙ্গা দলিল লেখক সমিতি অবৈধ কোন কাজকে প্রশ্রয় দেয় না, আনিসুর জোর করে দলিল লেখক সমিতি থেকে অবৈধ চাদা দাবি করতে চায়, আনিসুরের এই অবৈধ চাদা দাবি সমিতির প্রায় ৯০ জন দলিল লেখক তা মেনে নেবে না।

নাম না জানার সর্থে সমিতিট একজন মহুরী বলেন আমরা কষ্ট করে দলিল লিখবো  আর আনিসকে দলিল প্রতি পাঁচ শত টাকা চাদা দিতে হবে এটা কখনো সম্ভব না,একমাত্র দলিল লেখক আনিসুর রহমান আনিসের কারনে সমিতিতে নানা ঝামেলার সৃষ্টি হচ্ছে, এ বিষয়ের সঠিক সমাধান হওয়া দরকার।

দলিল লেখক হয়ে দলিল লেখক সমিতির বিরুদ্ধে ইউএনও বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন, এ বিষয়ে  দলিল লেখক (মহুরী) আনিসুর রহমান বলেন, সলঙ্গা দলিল লেখক সমিতি সভাপতির নির্দেশে দলিল গ্রহীতাদের থেকে দীর্ঘ দিন যাবত সুকৌশলে নির্ধারিত দলিল ফীর চেয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করে আসছে, আমি এই অতিরিক্ত অর্থ আদায় বাধা দেওয়ায় আমাকে মিথ্যে চাদাবাজীর অভিযোগ দিচ্ছে, আপনি (আনিস) তো সমিতির সদস্য ওই অর্থের ভাগ নিয়ছেন জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, আগে ১নং সদস্য ছিলাম ভাগ নিয়েছি,বর্তমানে আমাকে না জানিয়ে ৫নং সদস্য বানিয়েছে তাই অতিরিক্ত অর্থের ভাগ নেব না কোন দলিল লেখককে নিতে দেব না বলে তিনি জানান।

বাখ//আর