Home আন্তর্জাতিক তওবা কখন কেন কীভাবে করবেন

তওবা কখন কেন কীভাবে করবেন

11
0


আরবি তওবা শব্দের অর্থ ফিরে আসা। পাপ থেকে পুণ্যের পথে, অন্ধকার থেকে আলোয় ফিরে আসা। কবিরা গুনাহ থেকে মুক্ত হওয়ার একমাত্র মাধ্যম তওবা। পারিভাষিক অর্থে খাঁটি মনে অতীতের সব গুনাহ থেকে ফিরে আসার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা করাকে তওবা বলা হয়।

কোরআনে তওবার কথা
ইসলামের দৃষ্টিতে তওবার গুরুত্ব অপরিসীম। পাপমুক্ত হওয়ার জন্য ইসলামে অর্থব্যয় করে কোনো ক্ষমাপত্র ক্রয় করতে হয় না। খাঁটি মনে অন্যায় থেকে ফিরে আসার প্রতিজ্ঞাই যথেষ্ট। কোরআন-হাদিসে তওবার গুরুত্ব সম্পর্কে অনেক উৎসাহবাণী উচ্চারিত হয়েছে। অল্প কিছু উদ্ধৃতি পাঠকের উদ্দেশে তুলে ধরছি।

আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হে মুমিনগণ, তোমরা সকলে আল্লাহর কাছে তওবা করো। যাতে তোমরা প্রকৃত অর্থে সফল হতে পারো।’ (সুরা নুর: ৩১)

অন্য এক আয়াতে বলেন, ‘তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করো এবং তার কাছে ফিরে এসো। তিনি তোমাদের একটি নির্ধারিত সময় পর্যন্ত উত্তমরূপে জীবন উপভোগ করতে দেবেন।’ (সুরা হুদ: ৩)

আল্লাহ তাআলা আরও বলেন, ‘হে বিশ্বাসীগণ, তোমরা তোমাদের রবের কাছে খাঁটিভাবে তওবা করো’। (সুরা তাহরিম: ৮)

হাদিসে তওবার গুরুত্ব
তওবার গুরুত্ব তুলে ধরে মহানবী (সা.) বলেন, ‘আল্লাহর কসম, আমি প্রতিদিন সত্তর বারের অধিক আল্লাহর কাছে ইস্তিগফার করি ও তওবা করি।’ (বুখারি: ৬৩০৭) চিন্তা করুন, মহানবী (সা.) নিষ্পাপ হয়েও দৈনিক সত্তর বার এবং কোনো কোনো বিশুদ্ধ বর্ণনা অনুযায়ী একশো বার তওবা ও ইস্তিগফার করেছেন, সেখানে আমাদের মতো গুনাহগারদের কয়বার করা জরুরি হবে? নবী (সা.) এ জন্য তওবা করতেন না যে, তিনি পাপাচারে লিপ্ত ছিলেন; বরং উম্মতকে শিক্ষা দেওয়ার জন্যই এমনটা করতেন।

আরেক হাদিসে মহানবী (সা.) বলেন, ‘এমন এক ব্যক্তির কথা ভাবুন, যিনি বিস্তীর্ণ কোনো মরুভূমিতে ভ্রমণকালে তার বাহনটি হারিয়ে ফেলেছেন। বাহনের সঙ্গে তাঁর খাবার-পানীয়ও ছিল। বাহনটি খুঁজে পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়ে তিনি একটি গাছের নিচে গিয়ে শুয়ে পড়লেন। এরকম নৈরাশ্যঘেরা সময়ে হঠাৎ করে তিনি দেখলেন, তাঁর বাহন তাঁর সামনেই দাঁড়িয়ে আছে। তিনি লাগাম ধরে খুশির উত্তেজনায় বলে বসেন, হে আল্লাহ আপনি আমার বান্দা এবং আমি আপনার খোদা। তিনি খুশিতেই ভুলটা করেছেন। আচ্ছা বলুন তো এই বান্দার খুশির পরিমাণ কেমন হবে? কোনো বান্দা তওবা করলে আল্লাহ তাআলা এর চেয়েও বেশি খুশি হন।’ (মুসলিম: ২৭৪৭)

তওবা কবুল হওয়ার শর্ত
ইমাম নববি (রহ.) উলামায়ে কেরামের উদ্ধৃতি টেনে বলেন, সব গুনাহ থেকেই তওবা করা আবশ্যক। যদি গুনাহটি আল্লাহর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হয়, তবে সেই গুনাহ থেকে তওবা কবুল হওয়ার জন্য তিনটি শর্ত। এক. সেই গুনাহ সর্বাত্মকভাবে ত্যাগ করতে হবে। দুই. কৃতকর্মের জন্য লজ্জিত হতে হবে। তিন. ভবিষ্যতে সে কাজটি পুনরাবৃত্তি না করার ব্যাপারে দৃঢ়ভাবে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে হবে। এর কোনো একটি অনুপস্থিত হলে তওবা খাঁটি বলে সাব্যস্ত হবে না।

পক্ষান্তরে গুনাহ যদি কোনো মানুষের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হয়, তবে সেই পাপ থেকে তওবা গৃহীত হওয়ার জন্য রয়েছে চারটি শর্ত। ওপরের তিনটি এখানেও প্রযোজ্য হবে। চতুর্থ শর্তটি হলো, যার সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে এবং যার অধিকার নষ্ট করা হয়েছে, তার কাছে ক্ষমা চেয়ে সেটা থেকে মুক্ত হয়ে যাওয়া। যেমন, গুনাহটি যদি অন্যের অর্থ-সম্পদ সংশ্লিষ্ট হয়, তবে তা ফিরিয়ে দেওয়া। কারো প্রতি যদি অপবাদ আরোপ করে হয়, তবে নিজেকে তার কাছে উপস্থিত করে প্রতিশোধ গ্রহণ করার সুযোগ দেওয়া অথবা তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা। যদি কারো গিবত বা দোষচর্চা করা হয়, সেটার জন্যও ক্ষমা চেয়ে নেওয়া। সব গুনাহ থেকেই তওবা করা আবশ্যক। যদি কিছু গুনাহ থেকে তওবা করা হয় আর কিছু থেকে করা না হয়, তবে অধিকাংশ আলেমদের মতে, যেসব গুনাহের উল্লেখ হবে, শুধু তা-ই গ্রহণযোগ্য হবে।

তওবার পরও গুনাহ করলে
গুনাহ থেকে খাঁটি মনে তওবা করার পরও যদি কখনো শয়তানের কুমন্ত্রণায় পড়ে কোনো ব্যক্তি পুনরায় গুনাহে লিপ্ত হয়ে পড়ে, তবে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। তার উচিত হলো, সঙ্গে সঙ্গে তওবা নবায়ন করা এবং এ ব্যাপারে সচেতন থাকা, যেন সামনে আর কখনো এমনটা না ঘটে। মনে রাখতে হবে, আমাদের তওবা যেন কাকের তওবার মতো না হয়।

জনৈক ফারসি কবি বলেন, ‘হাতে তাসবিহ, মুখে তওবার শব্দ অথচ মনে গুনাহের প্রীতি/আমাদের তওবায় গুনাহও হেসে হয় কুটিকুটি।’

বাংলাদেশ জার্নাল/কেএ





Source link