Home বিনোদন প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ হরমোন দিবস পালিত

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ হরমোন দিবস পালিত

11
0

মেডিভয়েস রিপোর্ট: দেশে প্রথমবারের মতো উদযাপিত হলো বাংলাদেশ হরমোন দিবস। আজ বুধবার (২৪ এপ্রিল) অ্যাসোসিয়েশন অব এন্ডোক্রাইনোলজিস্ট অ্যান্ড ডায়াবেটোলজিস্ট অব বাংলাদেশের (এসিএডিবি) উদ্যোগে সংগঠনটির কার্যালয়ে দিবসটি পালিত হয়।

এ উপলক্ষে দুপুরে রাজধানীর হাতিরপুলে অ্যাসোসিয়েশনের মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে এসিএডিবি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. এ কে এম আমিনুল ইসলাম, বাংলাদেশ এন্ডোক্রাইন সোসাইটি ও এসিএডিবি সেক্রেটারি অধ্যাপক ডা. ইন্দ্রজিত প্রসাদ।

দেশের ৫০ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনো হরমোনজনিত সমস্যায় ভুগছেন বলে জানান অধ্যাপক ডা. ফরিদ উদ্দিন।

জাতীয় স্বার্থে এসিএডিবি কাজ করবে জানিয়ে অধ্যাপক ফরিদ বলেন, মানুষের মাঝে হরমোন চিকিৎসা নিয়ে আশার সঞ্চার করা আর আস্থা সৃষ্টিই সংগঠনের লক্ষ্য।

দেশে হরমোনের চিকিৎসার সক্ষমতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, হরমোনের চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন নেই।

তিনি আরও বলেন, ‘সাধারণ মানুষ হরমোন বোঝে না, আমরা আমাদের এসোসিয়েশনের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে সচেতন করার জন্য দেশে এই প্রথম হরমোন দিবসের আয়োজন করেছি।’

হরমোন সম্পর্কে সচেতনায় গুরুত্বারোপ করে ডা. ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘প্রজনন শক্তি থেকে শুরু করে মানুষের বুদ্ধি, বৃদ্ধি—সবই এটা নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু আমরা তা জানি না। কারও সন্তান হচ্ছে না, আমরা গাইনি বিশেষজ্ঞের কাছে দৌড়াচ্ছি। অথচ এর অন্যতম কারণ কিন্তু হরমোন। শিশু স্কুলে খারাপ করছে, আর এর সমাধানে বাসায় প্রাইভেট টিউটরের সংখ্যা বাড়িয়ে দিচ্ছি। আমরা অবগত নই যে, হরমোনের ঘাটতির কারণে শিশুর বুদ্ধি লোপ পাচ্ছে।’

অনুষ্ঠানে ডা. ইন্দ্রজিৎ প্রসাদ বলেন, দেশে তিন কোটি মানুষ বিভিন্ন হরমোন রোগে আক্রান্ত অথচ তারা এ ব্যাপারে অবগত নন।

থাইরয়েড বা হরমোনের অভাবে শিশুর বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশজনিত সমস্যা হয়ে থাকে জানিয়ে তিনি বলেন, এ কারণে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হুমকির মুখে রয়েছে। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে হরমোনের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান অধ্যাপক ডা. ইন্দ্রজিৎ প্রসাদ।

হরমোন নিয়ে সাধারণ মানুষ নানা কুসংস্কারে আচ্ছন্ন বলে জানান অ্যাসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ একেএম আমিনুল ইসলাম। তিনি বলেন, সজনে পাতা ও অনলাইনে ডায়াবেটিস প্রতিরোধে যে সব চটকদার বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়, তা সম্পূর্ণ অবৈজ্ঞানিক। এ ব্যাপারে  সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

এ ছাড়াও হরমোনজনিত বিভিন্ন সমস্যা ও এর সমাধান নিয়ে দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন হলি ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের হরমোন বিভাগের প্রধান এসিএডিবি সহ সভাপতি অধ্যাপক ডা. মীর মোশাররফ হোসেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) হরমোন এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. আতিকুর রহমান, ডা. মইনুল ইসলাম, ডা. মোরশেদ আহমেদ, বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজের হরমোন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এসোসিয়েশনের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ডা. ইয়াসমিন আক্তার ও অফিস সম্পাদক ডা. মোবারক হোসেন জামিল। 

আরও বক্তব্য রাখেন এসিএডিবি সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মোর্শেদ আহমেদ খান, কোষাধ্যক্ষ ডা. একেএম আমিনুল ইসলাম ও যুগ্ম সম্পাদক ডা. মইনুল ইসলাম।

এএনএম/