Home বিনোদন নিষেধাজ্ঞায় মন্দ খবর কি আড়াল হচ্ছে

নিষেধাজ্ঞায় মন্দ খবর কি আড়াল হচ্ছে

4
0

তবে শেষ পর্যন্ত তা ঠেকিয়ে রাখা যায়নি, দেশের বাইরে থেকেই সে খবর ফাঁস হয়েছিল। আবার কথিত ক্রলিং পেগ পদ্ধতিতে টাকার অবমূল্যায়ন বা ডলারের দাম বাড়ানোর খবর কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ঘোষণার আগেই একাধিক পত্রিকায় ছাপা হয়েছে। শুধু তারা নির্দিষ্ট করে যা বলতে পারেনি, তা হলো কত শতাংশ অবমূল্যায়ন হচ্ছে। সুতরাং চাইলেই যে সবকিছু গোপন রাখা যায় না, সেটা তারা ভুলে গেলেও আবারও তার প্রমাণ মিলেছে।

এর মধ্যেও খবর বেরিয়েছে, চট্টগ্রামের একটি ব্যবসায়ী গোষ্ঠী কীভাবে ভুয়া কাগজে ২৪টি ব্যাংক থেকে ৫ হাজার ৬৬৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। দুর্বল ব্যাংকের সঙ্গে সবল ব্যাংকের একীভূতকরণের সিদ্ধান্ত যে চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং সবল কিংবা দুর্বল কোনো ব্যাংকই যে জোরপূর্বক প্রণয়ে রাজি নয়, সেই খবরও গোপন থাকেনি। বিপন্ন অবস্থায় থাকা বেসিক ব্যাংক থেকে অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই যে আড়াই হাজার কোটি টাকা গ্রাহকেরা তুলে নিয়েছেন এবং অন্যরা টাকা চাইলে যে তারা টাকা দিতে পারবে না—এ খবর কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রকাশ না করলেও সংবাদপত্রে তা ছাপা হয়েছে। প্রতিবাদ-বিক্ষোভ দমনের রেকর্ডের কারণে দেশে যে ভয়ের পরিবেশ বিরাজ করছে, তা না থাকলে দুর্দশাগ্রস্ত ব্যাংকগুলোর গ্রাহকেরা এখনো কি শান্ত থাকতেন?

স্পষ্টতই বাংলাদেশ ব্যাংকের নিষেধাজ্ঞার লক্ষ্য ব্যর্থ হয়েছে। সুতরাং আরও একটি ভুল নীতি গ্রহণের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরকে ধন্যবাদ। আপনার সিদ্ধান্ত যে সাংবাদিকদের সত্য বের করে আনার জেদকে তীব্রতা দিয়েছে, তা তো অস্বীকার করতে পারি না। প্রতিবেশী দেশের সংবাদমাধ্যমেও বাংলাদেশ ব্যাংকের ভেতরে একধরনের নাশকতার কথা প্রকাশ পেয়েছে, তা যদি ঠিক না হয়, তাহলে ভুয়া তথ্য ও গুজবের শাখা-প্রশাখা বিস্তারে পরোক্ষ ভূমিকার দায়ও আপনার কাঁধে বর্তায়। আর বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ সংক্রান্ত ভারতীয় অনলাইনের সংবাদ অস্বীকারের পর তো মানুষের মনে সন্দেহ আরও বেড়েছে যে গুরুতর কিছু একটা ঘটেছে। এই সন্দেহ কাটানো সহজ নয়। তথ্য গোপন রাখার চেষ্টা যত হবে, তত যে গুজব ও অপতথ্যের ডালপালা ছড়াবে, এ কথা নিশ্চয়ই নতুন করে মনে করিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই!